‘মুসলমানরা কোথায়ও নির্যাতিত হলে ইসলামী আন্দোলন সবার আগে এগিয়ে আসবে’

সৈয়দ বেলালী দাম্মাম: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতি আপনারা সকলেই জানেন, গুম খুন ধর্ষণ স্বাভাবিক হয়ে গেছে, দুর্নীতি দুঃশাসনে জনগন অতিষ্ঠ, সর্বত্রই লুটপাট চলছে, ব্যাংক, শেয়ার বাজার, হলমার্ক, সর্বশেষ চামড়া পর্যন্ত চাড় দেয়ে নাই এই লুটেরা।

দেশ নিয়ে চলছে গভীর সডযন্ত্র, ডোলান ট্রাম্পের নিকট প্রিয়া সাহার মিথ্যা অভিযোগ, ইসকন কর্তৃক চট্রগ্রামে ৩০ টি স্কুলে মুসলিম শিশুদের কে হিন্দুদের প্রসাদ খাওয়ানো সবই সডযন্ত্রের অংশ। অতএব আমাদের কে সজাগ থাকতে হবে।

গত বুধবার (১৪ আগস্ট) মক্কায় একটি অভিজাত হোটেলে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সৌদি আরব কেন্দ্রীয় কমিটির দ্বিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

পীর সাহেব বলেন,বিশ্বব্যাপি মুসলমানদের কে নিধন করার জন্য ইহুদি খৃষ্টান ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছে,
ইতিমধ্যে দেখেছেন ঈদের পুর্বমহুর্তে কাশ্মিরের উপর ভারত সরকার অমানবিক অত্যাচার ‍শুরু করেছে। কাশ্মিরীদের সংবিধান থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে তাদের অধিকার হরণ করা হয়ছে, তার মূল কারন কাশ্মীরে সংখ্যাঘরিষ্ট মুসলমান। তাদের অত্যাচার ও অধিকার ফিরিয়ে আজাদী দেয়ার জন্য রাজপথে আন্দোলন করেছি।

এছা্ড়াও বিশ্বের যে কোন প্রান্তে মুসলমান নির্যাতনের শিকার হবে, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সবার আগে রাজপথে নেমে আসবে, এবং আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন শায়েখ মুফতী মিজানুর রহমান, পরিচালনা করেন মাও. ওসমান গনী রাসেল। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম, পীর সাহেব চরমোনাই।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী আন্দোলনের প্রেসিডিয়ামের অন্যতম সদস্য সৈয়দ মাও. মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব অধ্যক্ষ ইউনুস আহমাদ।

দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলােশের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব মাও. নেয়ামত উল্লাহ আল ফরিদী, ইসলামী শ্রমীক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি আলহাজ্ব জান্নাতু ইসলাম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুর রহমান।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সদস্য সেলিম মাহমুদ, ইসলামী যুব আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি যুব নেতা কে এম আতিকুল ইসলাম, ইসলামী যুব আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী জেনারেল যুব নেতা মাও. নেছার আহমাদ, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্র নেতা মাও. শরীফুল ইসলাম, ইসলামী শ্রমীক আন্দোলন ফেনী জেলার সভাপতি হাফেজ রফিকুল ইসলাম।

স্থানীয় নেতাদের মধ্যে উপস্থিত, সৌদি আরবের বিভিন্ন প্রাদেশিক শাখার দায়িত্বশীল ও কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি মাও.আমিনুল ইসলাম, মুফতী আলতাফুর রহমান গাজী,হাফেজ আসদ উল্লাহ, মুফতী জহিরুল ইসলাম, শওকাত আলী, হাফেজ ওমর ফারুক প্রমুখ।

পরে পীর সাহেব বিগত কমিটি বিলুপ্ত করে আগামী দুই বছরের জন্য শায়েখ মুফতী মিজানুর রহমান কে সভাপতি, হাফেজ আসাদ উল্লাহ কে সেক্রেটারী করে পুর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষনা ও শপথ পাঠ করান। পীর সাহেবের দোয়া ও মুনাজাতের মাধ্যমে দ্বিবার্ষিক সম্মেলন সমাপ্তি করা হয়।

এ/

Comments